Saturday, July 20, 2024

রাজস্থলীতে শীতের তীব্রতা বাড়ছে, দুর্ভোগে দিনমজুরী

Date:

উচ্চপ্রু মারমা।। রাজস্থলী।।

হাঁড় কাপানো শীতের কারণে ঘর থেকে বের হতে পারছেনা দিনমজুর আর খেটে খাওয়া মানুষ। তীব্র শীতে কাঁপছে পাহাড়ের মানুষ ঠাণ্ডায় বিপর্যস্ত জীবনযাত্রা ঘন কুয়াশা,হিমেল বাতাস আর হাড় কাঁপানো কনকনে শীতে কাঁপছে পার্বত্য চট্টগ্রামের খেটে খাওয়া সাধারণ মানুষ।বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে মানুষের জীবন মান।

রাত থেকে শুরু করে দুপুর পর্যন্ত বৃষ্টির ফোঁটার মতো ঝরছে শিশির।গত ২দিন ধরে দেখা মিলছে না সূর্যের। দিন-রাত ২৪ ঘণ্টাই ঘন কুয়াশায় আচ্ছন্ন থাকছে পুরো রাজস্থলী উপজেলা। অপর দিকে দেখা যায় দিনের বেলায়ও হেডলাইট জ্বালিয়ে চালাতে হচ্ছে যানবাহন।

এদিকে রাত ও দিনে তাপমাত্রা প্রায় কাছাকাছি হওয়ায় দিনের চেয়ে রাতে অনেক বেশি ঠাণ্ডা অনুভূত হচ্ছে। মানুষ আগুন জ্বালিয়ে শীত নিবারণের চেষ্টা করছে প্রচণ্ড শীতে কাজে বের হতে গিয়ে বেকায়দায় পড়ছেন শ্রমজীবী ও নিম্ন আয়ের মানুষ। ঘন কুয়াশা আর ঠাণ্ডায় নষ্ট হচ্ছে ধানের বীজতলা। এতে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন কৃষকরা। এখানে গবাদিপশুরাও ঠাণ্ডায় কষ্ট পাচ্ছে। এ প্রাণীগুলো শীতজনিত বিভিন্ন রোগে ভুগতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

বিভিন্ন পাহাড়ী এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, রাতভর পড়া কুয়াশায় ভিজে গেছে পিচঢালা পথগুলো। গাছের পাতা,ফসলের ক্ষেত আর ঘাসের ওপর থেকে টপটপ করে পড়ছে শিশির বিন্দু।কুয়াশার মধ্যেই গায়ে শীতের কাপড় জড়িয়ে কাজের সন্ধানে ছুটছে কর্মজীবী মানুষরা।বিদ্যালয় মুখি শিক্ষার্থীরা আগুন পোহাচ্ছে লাকড়ী জ্বালিয়ে।  তবে গ্রামের অন্যান্য সময়ের চেয়ে লোক সমাগম কম। এমনকি হাটবাজারে পুরাতন কাপড়ের বাজারেও ক্রেতার উপস্থিতি নাই।

বাঙালহালিয়া এলাকার যতীন্দ্র মারমার সাথে কথা হলে তিনি বলেন,ঘন কুয়াশা আর ঠাণ্ডা বাতাসে মানুষ ঘর থেকে বাইরে বের হচ্ছে না। আগে দিনে ৬শ টাকা মুজুরী আয় হত। গত কয়েকদিন ধরে ঠান্ডার কারণে কাজে বের হতে পারিনাই  টাকা আয় হয় না। খুব কষ্টে দিন যাচ্ছে, একদিকে আয় কম, অন্যদিকে বাজারের সব জিনিসের দাম বেশি।রাজস্থলী বাজারের  টমটম চালক জমির উদ্দিন বলেন, সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত কুয়াশায় রাস্তা দেখা যাচ্ছে না। লাইট জ্বালে গাড়ি চালাচ্ছি। বিকাল ৪টার পর ঘন কুয়াশা শুরু হয়। সন্ধ্যা হইলে হেডলাইট জ্বালেও কিছুই দেখা যায় না।
এদিকে ঠাণ্ডা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে শীতজনিত রোগে আক্রান্তের হার বেড়েছে। বিশেষ করে শিশু ও বয়স্করা বেশি আক্রান্ত হচ্ছেন।প্রায় সময় দেখা যায়  হাসপাতালগুলোতে রোগীর চাপও বেড়েছে।

চিকিৎসকরা জানান, শীতজনিত রোগে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়েছে। এ সময় চলাফেরায় সবাইকে সাবধান হতে হবে, বিশেষ করে শিশু ও বয়স্কদের ঠাণ্ডা লাগানো যাবে না।গতকয়েক দিন আগে শীত শুরুর প্রারম্ভে উপজেলা প্রশাসন পাহাড়ের মানুষের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করেন। পর্যাপ্ত পরিমান শীতবস্ত্র না থাকায় সব পাড়ায় বিতরণ করা সম্ভব হয়নি। স্থানীয়রা জানান,শীত নিবারণের জন্য সরকার শীতবস্ত্র  বিতরণ করা হলে এ শীতের কাপাঁনো কিছুটা কমত।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Share post:

জনপ্রিয়

আরো সংবাদ
Related

কোটা সংস্কারপন্থী শিক্ষার্থীদের আলোচনায় বসতে রাজি সরকার

।।রুমাবার্তা ডেস্ক।। কোটা সংস্কারপন্থী শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আলোচনায় বসতে সম্মতি জানিয়েছে...

দীঘিনালায় সম্প্রতি বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে  নগদ অর্থ ও স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ

দহেন বিকাশ ত্রিপুরা।।খাগড়াছড়ি।। পার্বত্য জেলা খাগড়াছড়ির দীঘিনালায় বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে...

আলীকদমে নব-নির্মিত রত্নানন্দ বৌদ্ধ বিহার ও অনাথ শিশু সেবা কেন্দ্রের শুভ উদ্বোধন

সুশান্ত কান্তি তঞ্চঙ্গ্যাঁ।।আলীকদম।। প্রাকৃতিক সৌর্দযের লীলাভূমি বান্দরবানের আলীকদম উপজেলার ৩নং...

সরকারি চাকুরিতে ৫% পাহাড়ি কোটা বহালের দাবীতে খাগড়াছড়িতে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ

দহেন বিকাশ ত্রিপুরা।।খাগড়াছড়ি॥ সরকারি চাকুরির সকল গ্রেডে ৫ ভাগ পাহাড়ি...